তথ্য সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে ইউএনও নাজমুস সাকিব

প্রকাশিত: ৭:০৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

তথ্য সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে ইউএনও নাজমুস সাকিব

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি-
সিলেটের গোয়াইনঘাটে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত হয়েছে।

২৮ সেপ্টেম্বর (সোমবার) সকাল ১১টায় গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়।

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাজমুস সাকিবের সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মোঃ নাজমুস সাকিব বলেন, আজ
বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস। ‘সংকটকালে তথ্য পেলে জনগণের মুক্তি মেলে,তথ্য অধিকার সংকটে হাতিয়ার,
’ এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে। তিনি বলেন,

তথ্য জানার অধিকারের বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে প্রতিবছর দিবসটি পালন করা হয়। ২০১৫ সালে ইউনেস্কোর নেওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর প্রথম তথ্য অধিকার দিবস পালন করা হয়। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবা বিস্তৃত হওয়ায় ডিজিটাল বৈষম্যের কারণে কেউ যেন পিছিয়ে না থাকে, এবছর সে বিষয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে ইউনেস্কো। দিবস পালন উপলক্ষে সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন,
তথ্য অধিকার আইন একটি জনকল্যাণকর আইন। দেশের সব পর্যায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ, সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং সব স্তরে দুর্নীতি দূরীকরণের একটি কার্যকর হাতিয়ার হিসেবে তথ্য অধিকার আইনের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সরকার এবং রাষ্ট্রের কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার অধিকার বিশ্বব্যাপী একটি মানবাধিকার হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ৩৯ নং অনুচ্ছেদে জনগণের চিন্তা, বিবেক ও বাকস্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে। জনগণের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে তথ্য জানার অধিকারকে প্রাধান্য দিয়েই প্রণয়ন করা হয়েছে ‘তথ্য অধিকার আইন ২০০৯’ এবং এর যথাযথ বাস্তবায়নে তথ্য কমিশন গঠন করা হয়েছে। তথ্য অধিকার আইনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করার পাশাপাশি এ আইনের যথাযথ প্রয়োগে তথ্য কমিশনকে আরও কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও দুর্নীতিমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। জনগণের তথ্য জানার অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জাতির পিতার স্বপ্নের সফল বাস্তবায়ন সম্ভব হবে বলে আমার বিশ্বাস।’
তিনি বলেন, ‘আধুনিক প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণকে তথ্য অধিকার সম্পর্কে সচেতন করতে এবং তথ্য সেবা নিশ্চিত করতে তথ্য কমিশন অনলাইন প্রশিক্ষণ ও অনলাইন ট্র্যাকিং সিস্টেম কার্যক্রম গ্রহণ করেছে জেনে আমি আনন্দিত। এর ফলে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ এই আইনের সুফল ভোগ করতে পারবে এবং তথ্য জানার মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবে।’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য বক্তব্য রাখেন, গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আফিয়া বেগম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সুলতান আলী, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ আবু কাওছার, পশ্চিম জাফলং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম,গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাব সভাপতি এম,এ,মতিন, সমবায় কর্মকর্তা আবুল কাসেম ভুইঁয়া, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বদরুল ইসলাম।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ