ছাতকে প্রতিপক্ষের হামলায় মৃত্যুশয্যায় মুক্তিযোদ্ধার দুই সন্তান

প্রকাশিত: ৩:৩৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০২০

ছাতকে প্রতিপক্ষের হামলায় মৃত্যুশয্যায় মুক্তিযোদ্ধার দুই সন্তান

ছাতকে প্রতিপক্ষের হামলায় মৃত্যুশয্যায় মুক্তিযোদ্ধার দুই সন্তান

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার নিজগাও ধনীটিলায় বসবাসকৃত অসচ্ছল ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মীত ভিটে ভূমি থেকে উচ্ছেদ করে অবৈধভাবে বিক্রি ও পাথর উত্তোলনে চেষ্টাকালে বাধা দেওয়ায় ৪ জনকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিপক্ষরা।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুর ২ টায় উপজেলার নিজগাঁও ছনবাড়ি বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন নিজগাও ধনুটিলায় বসবাসকারী মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদের ছেলে আব্দুর রহমান, রুবেল আহমদ ও মৃত সামসুদ্দিনের ছেলে কামরান আহমদ।

এ সময় বাড়িতে ছুটি কাটাতে আসা ফায়ার সার্ভিস সদস্য দেলোয়ার হোসেন দিলু নিজ কর্মস্থলে ফিরে যাওয়ার সময় ছনবাড়ী বিজিবি ক্যাম্পের সামনে গেলে প্রতিপক্ষ কামাল উদ্দিন ও তার ছেলে মাসুম,কামাল উদ্দিনের ভাতিজা শাহ জাহান,জাহাঙ্গীর,বুরহান,জাকিরসহ ১০/১৫ জনের স্বসস্ত্র গ্রুপ তাকে পথরোধ করে হামলা করে।এ ঘটনার খবর পেয়ে দেলোয়ারের দুই সহোদর আব্দুর রহমান,রুবেল আহমদ ও তার ভগ্নিপতি কামরান আহমদ তাকে বাচাতে এলে তাদেরকেও পিটিয়ে জখম করে।

ঘুরতর আহতবস্থায় তাদেরকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার প্রেক্ষিতে দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় কামাল উদ্দিনের মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়।আহত কামাল উদ্দিনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য,সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার ধনীটিল্লায় প্রচুর পরিমান খনিজ সম্পদ (পাথর) মজুদ থাকায় মুক্তিযোদ্ধা ইন্তাজ আলী,কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে স্থানীয় একটি চক্রের শুকুনিদৃষ্টি পড়ে।ধনীটিলায় স্থানীয় মুনিপুরি উপজাতী ও ভূমিহীন অসচ্ছল শতাধিক পরিবার ধীর্ঘপ্রায় ৪০ বছর ধরে বসবাস করে আসছে।সম্প্রতি ইন্তাজ আলী ও কামাল উদ্দিন চক্রটি ধনীটিলায় বসবাস কারীদের উচ্ছেদ করতে বিভিন্ন সময় হামলা ও মামলার ভয় দেখিয়ে যাচ্ছে।তাদের ভয়ে অনেক মুনিপুরি ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার বসতবাড়ী ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে।

এই চক্রটি দীর্ঘদিন যাবত ধনী টিলার সবুজ পাহাড়ি ভূমি কেটে ও ক্ষুরে পাথর উত্তোলন করার চেষ্টা করে যাচ্ছে।
এছাড়াও ধনীটিলার পাথুরে ভূমি বিভিন্ন জনের কাছে বিক্রি করাসহ নিরীহদের অত্যাচার করে যাচ্ছে।

সম্প্রতি কামাল উদ্দিন ও ইন্তাজ আলীর নেতৃত্বে ধনীটিলার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছামাদের দখলীয় পাথুরে বাগান রকম ভূমি দখল করে বিক্রি করতে গেলে দুই পক্ষের তর্কাতর্কি হয়।এর জের ধরে স্থানীয় ছনবাড়ী বাজারে দেলোয়ার হোসেন দিলুর উপর হামলা করে কামাল উদ্দিন গ্রুপ।

আব্দুল আলীম নামের স্থানীয় একজন বাসিন্দা বলেন, ধনীটিলায় প্রচুর পাথর মজুদ রয়েছে তাই ভূমিখেকু ইন্তাজ আলী ও কামাল উদ্দিনের নজর পড়েছে এই টিলায়।তারা চাচ্ছে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের শাহ আরফিন টিলার মত এই ধনীটিলাতে পাথর উত্তোলন করতে।তাইতো এখানে বসবাসরত মুনিপুরি ও অসহায় মুক্তিযোদ্ধাদের উচ্ছেদ করে বিভিন্ন পাথর খেকুদের কাছে বিক্রি করছে।

আব্দুল আহাদ নামের একজন স্থানীয় বাসিন্দা বলেন,ইন্তাজ আলী একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়ে কি করে আরেক মুক্তিযোদ্ধার জমি দখল করতে যায়?

ইন্তাজ আলী ও কামাল উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে এই ধনীটিলাকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করে যাচ্ছে।তারা চায় ধনীটিলা যেন শাহ আরফিন টিলা হয়ে উঠে।

এদিকে সচেতন মহলের দাবী,শাহ আরফিন টিলার মত মরুকরন পূনরাবৃত্তি যেন না ঘটে এই ধনীটিলায়।

ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছামাদ বলেন,আমি বিগত ৩০-৩৫ বছর যাবত এই ভূমি সরকারি খাজনাসহ সকল আইন মেনে ভোগ করে আসছি। বিগত কয়েকদিন যাবত নিজগাঁও গ্রামের কামাল উদ্দিন মাস্টার এই জায়গা দখলের পায়তারা করে আসছে। কামাল মাস্টারের ভাতিজা জাহাঙ্গীর আলম ও বুরহান ছাতকের আলোচিত বুলবুল হত্যা মামলার চার্জশীটভুক্ত আসামী।এদের দাপট দেখিয়ে আমাকে জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য কয়েকবার হুমকি ও দিয়েছিল তারা।

এ ব্যাপারে ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাজিম উদ্দিন প্রতিবেদকে বলেন,দুই পক্ষই থানায় মামলা করেছে।দায়ীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ