সিলেটের জেলা প্রশাসক, পুলিশ কমিশনার ও পুলিশ সুপারের সহযোগিতা চাইলেন শ্রমিক নেতা আবুল খান

প্রকাশিত: ৫:২২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২০

সিলেটের জেলা প্রশাসক, পুলিশ কমিশনার ও পুলিশ সুপারের সহযোগিতা চাইলেন শ্রমিক নেতা আবুল খান

আসাদুল হক, গোয়াইনঘাটঃ

সিলেট জেলা অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন চট্র-৭০৭ এর অন্তর্ভুক্ত আম্বরখানা – সালুটিকর শাখা সভাপতি আবুল হোসেন খাঁন বলেছেন, সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার নিশারুল আরিফ ও সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম
অত্যন্ত শ্রমিক বান্ধব কর্মকর্তা। সিলেটের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ কর্মকর্তা দ্বয় তাদের সততা, নিষ্ঠা এবং কর্মদক্ষতায় আজ দেশব্যাপী প্রশংসীত। সুতরাং উক্ত কর্মকর্তা মহোদয়ের সাহায্যে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া সিলেটে সিএনজি চালিত কয়েক হাজার অটোরিকশা গুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনা যেতে পারে । তিনি জানান, এসব সিএনজি চালিত অটোরিকশা গুলোকে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ)র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা রেজিস্ট্রেশন না দেয়ায় সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে । অপর দিকে বিআরটিএ থেকে রেজিস্ট্রেশন সনদ না পেয়ে নাম্বার বিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা ক্রয়করে বিপাকে পড়েছেন এসব সিএনজি চালিত অটোরিকশার মালিক ও চালকেরা। বিশেষ করে গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ ও সিলেট সদর উপজেলার কয়েক হাজার অসহায় শ্রমিক কোথাও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে না পেরে পরিবার পরিজনদের মুখে দুবেলা দুমুঠো ভাতের ব্যবস্থা করতে
অবশেষে তাদের সহায় সম্বল টুকু হারিয়ে নাম্বার বিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা ক্রয়করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে চলেছেন। বর্তমানে নাম্বার বিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচলে প্রশাসনের কড়া নজরদারি থাকায় ও-ই সকল শ্রমিকেরা রাস্তায় বেরোতে পারছেননা। ফলে তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। ওইসব শ্রমিকদের অসহায়ত্বের কথা বিবেচনা করে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ)র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নাম্বার বিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা গুলোকে রেজিস্ট্রেশন দেয়া সময়ের দাবি । তিনি বলেন, বাংলাদেশ মটরযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর ৩২ ধারা অনুযায়ী রাস্তায় চলাচলকারী সকল যানবাহন নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ঢাকা ও চট্টগ্রামে মহানগরীতে ১৩ হাজার করে সিলিং (অনুমতি) দেয়া আছে। যানজট নিয়ন্ত্রণে এর বাইরে রেজিস্ট্রেশন দেয়া হবে না। ১৩ হাজারের কোটা অতিক্রম করায় ২০০৮ সালে রেজিস্ট্রেশন দেয়া বন্ধ করে দেয় বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ। তিনি আরো বলেন,জেলা প্রশাসকের তত্ত্বাবধানে প্রতিটি জেলায় নির্দিষ্ট সিলিং অনুযায়ী সিএনজি অটোরিকশা রেজিস্ট্রেশনের অনুমতি দেয়া হয়। তিনি সিলেটের জেলা প্রশাসকের উক্ত বিষয়ে সহযোগীতা কামনা করেন। শনিবার (২১ নভেম্বর) রাত ৮টায় স্থানীয় তোয়াকুল বাজার মাঠে আয়োজিত
সিলেট জেলা অটোরিকশা সিএনজি চালিত শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং চট্র-৭০৭অন্তর্ভুক্ত আমম্বখানা- সালুটিকর শাখার আওতাধীন সালুটিকর স্টপীজ কমিটির দ্বি -বার্ষিক নির্বাচনী জনসভায় সভাপতিত্ব করেন তোয়াকুল স্টপীজের সহ সভাপতি আব্দুল করিম। শ্রমিক নেতা শীতেশ দাসের পরিচালনায়
শুভেচ্ছা বওব্য রাখেন, তোয়াকুল স্টপীজের সভাপতি জনাব আব্দুল মুনিম।
সাবেক সভাপতি নিয়াজ উল্লাহ,
সাবেক সাধারণ সম্পাদক তাজ উদ্দিন
সহসভাপতি নাছির উদ্দীন নওশাদ,
সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক খান,উপদেষ্টা ইউপি সদস্য সালুটিকর স্টোপেজে কমিটির উপদেষ্টা আজির উদ্দিন সালুটিকর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পদক শামীম আহমদ, সালুটিকর স্টোপেজে কমিটিতে নির্বাচনে পদপ্রার্থীদের মধ্যে মোঃ আব্দুল লতিব,লাহিন মিয়া, হেলাল আহমদ, মনজুর আহমদ, সামছুউদ্দিন,সালাম মিয়,
জাকির হোসেন, মতিউর রহমান, আজাদ হোসেন, আনসার আলী, সুমন আহমদ,
লেবু মিয়া,আজাদ মিয়া, আব্দুল মজিদ,মানিক মিয়া,জুয়েল আহমদ, রুবেল আহমদ,অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শ্রমিক নেতা, তাজ উদ্দিন, বিশেষ ইউপি সদস্য
মর্তুজ আলী উপজেলা ছাএলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন প্রমুখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ