জাফলংয়ে জামাই সুমন ও আতাই মেম্বার চক্রের বেপরোয়া চাঁদাবাজি: প্রতিবাদ করায় হামলা, আহত ৫

প্রকাশিত: ৩:৫৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২০

জাফলংয়ে জামাই সুমন ও আতাই মেম্বার চক্রের বেপরোয়া চাঁদাবাজি: প্রতিবাদ করায় হামলা, আহত ৫

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি-

গোয়াইনঘাট উপেজলার জাফলং পাথর কোয়ারি এলাকায় দীর্ঘ দিন থেকে চাঁদাবাজি করে আসছে একটি মহল। এই মহলের নাম বাংলাদেশ গোয়েন্দো সংস্থার রয়েছে বলে জানা গেছে। কিন্তু কিছুতেই এদের বিরুদ্ধে কোন আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। তারা নিজেদের আওয়ামীলীগ নেতা দাবি করে দলীয় প্রভাব খাঁটিয়ে এমন কান্ড করে আসছে। এই সাথে ছিলো নয়াবস্তির আলিম উদ্দিন তাকে একটি সাজানো মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে এখন জাফলংয়ে চাঁদাবাজির রামরাজত্ব কায়েম করছেন আলোচিত সাংবাদিক নামধারী চাঁদাবাজ জামাই সুমন ও আতাই মেম্বার।

জানা গেছে, উপজেলার জাফলং বাজারে চাঁদা দাবি করে না পেয়ে জামাই সুমন ও আতাই মেম্বারের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী হামলায় ৫ ব্যবসায়ী আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে জাফলং বাজারে এই সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার ঘটনায় আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ও স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।

সন্ত্রাসী হামলায় আহতরা হলেন, পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের নয়াবস্তি গ্রামের আব্দুল হাকিম মিয়ার ছেলে শাহীন মিয়া, আবুল খায়েরের ছেলে জামাল মিয়া, আবুল কাশেমের ছেলে জাকির মিয়া, হাবিবুল্লাহ ও জাকির।

আহতরা জানান, জামাই সুমন ও আতাই মেম্বারের নেতৃত্বে কান্দুবস্তি ও নয়াবস্তি গ্রামের সাবু মিয়ার ছেলে করিম, দাইয়ানের ছেলে খলিল, আবির আলীর ছেলে কাদির, মৃত মকবুলের ছেলে ইউসুফ, আকবর, মৃত রফিক মিয়ার ছেলে ফেরদৌস, সাধন মিয়ার ছেলে রিয়াজ, মখর মিয়ার ছেলে সুহেল, শফিক মিয়ার ছেলে মধু, ইউসুফ আলীর ছেলে মাসুক, কাশেম মিয়ার ছেলে ইমরান, সোনা মিয়ার ছেলে ইকবাল ও খালেক নুরের ছেলে রহমত তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। দেশীয় অস্ত্র শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে জাফলং বাজারে সন্ত্রাসীরা এই হামলা চালিয়ে ৫ জনকে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে, তবে হামলায় আহতরা জানিয়েছেন- সন্ত্রাসীরা উল্টো তাদের বিরুদ্ধে গোয়াইনঘাট থানায় একটি সাজানো মামলা দায়ের করেছেন বলে জানতে পেরেছেন

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ